প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। গ্রাহক, আপনার সঙ্গিনীকে আমরা সামনে থেকে পরীক্ষা করতে পারছিনা, তাই কিছু প্রশ্নের উত্তর দিয়ে সাহায্য করবেন, তাহলে আপনাকে সঠিক তথ্য দিয়ে আমরা সাহায্য করতে পারবো। আপনার প্রেমিকার এই পেট ব্যাথাটি কতদিন ধরে হচ্ছে? ব্যাথাকি পুরা পেট জুড়ে থাকে? নাকি নাভির আশেপাশে নাকি তলপেট এ ব্যাথাটি? আর কোথা ও ছড়ায়? ব্যাথার ধরনটি কি রকম? একটু বর্ণনা করতে পারবেন ?চাপা ব্যাথা না তীব্র ব্যাথা ? আপনার প্রেমিকার পায়খানা কি ঠিক মতো হয় ?পায়খানা কি কষা হয় ? ব্যথা কি খাবারের সাথে কোন সম্পৃক্ততা আছে? খালি পেটে বেড়ে যায়? নাকি খাবার খেলে ব্যথা বেশি হয়? উনার কি পেশাব করার সময় জ্বালাপোড়া হয়? আর কোন শারীরিক অসুস্থতা আছে কি? এই প্রশ্নগুলোর উত্তর জানা থাকলে আমাদের আপনাকে সাহায্য করতে সুবিধা হত।পেটের মাঝখানে ব্যাথা হওয়ার কমন কিছু কারন ১)পেপ্টিক আলসার ডিজিজ - যাকে আমরা সাধারনত গ্যাস্ট্রিকের ব্যাথা বলি। ২) একিউট প্যাঙ্ক্রিয়াটাইটিসঃ এই ব্যথা সাধারনত উপরের পেটের বাম পাশে অথবা পুরো উপরের পেটে হয়, তীব্র ব্যথা থাকে,সাথে বমি থাকে,ব্যথা পিঠের দিকে ছড়ায়, ৩)এপেন্ডিসাইটিসঃ ব্যাথাটি পেটের নাভীর চারপাশ বা মাঝখান থেকে ডান পাশে ছড়ায়। ৪)আই বি এসঃ এই ব্যথার খাবারের সাথে সম্পৃক্ত , খাবার খাওয়ার পর পর এ পেটে মোচড় দিয়ে থাকে। আবার তলপেটের ব্যাথার বিভিন্ন কারন থাকতে পারে।যেমন মাসিক এর সময় ব্যাথা যাকে বলা হয় ডিস্মেনোরিয়া। প্রস্রাবের রাস্তার ইনফেকশন এর ব্যাথা যাকে বলা হয় ই উটি আই ।কষা হলেও তলপেটে ব্যাথা হতে পারে। কিডনি ইনফেকশন বা পাথরেও পেটে ব্যাথা হতে পারে।গাইনেকোলজিকাল কিছু problem যেমন endometriosis, এর কারনেও তলপেটে ব্যাথা হতে পারে। উনার পায়খানা যদি নিয়মিত না হয় তাহলে,নিয়মিত ইশপগুলের ভুসি খেতে পারেন, আর শাকসবজী ফলমুল বেশি করে খাবেন, রাতে গরম দুধ সেবন করবেন। তেল মশলা এবং চর্বিযুক্ত খাবার ,অতিরিক্ত চা, কফি, টকজাতীয় ফল ইত্যাদি এক সাথে অনেক খাবার না খেয়ে বারবার অল্প অল্প করে খান।খাওয়ার ঠিক পরেই শুয়ে পরা ঠিক না। অনেকের কিছু খাবারে এসিডিটি বেশি হয় সেগুলো বাদ দিতে হবে। নিয়মিত খাওয়া কিছু ওষুধ যেমন প্রেসার ,পেইনকিলার,হাপানি ,কিছু এন্টিবায়োটিক, আইরন ট্যাবলেট ,এলার্জির ওষুধ খেলে এসিডিটি বেশি হয় , সেই রকম ক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।এসিডিটির ব্যথা হলে সাথে এন্টাসিড অথবা গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ সেবন করতে বলুন। প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া থাকলে বেশি করে পানি খাবেন।ব্যথার জন্য উনি প্যারাসিটামল খেতে পারেন।ব্যাথার জায়গায় গরম শেক দিতে পারেন।কিন্তু এতেও যদি কোন উন্নতি না হয় তাহলে অবশ্যেই একজন মেডিসিন বিশেষজ্ঞের এর সাথে দেখা করতে হবে।উনি আপনার প্রেমিকার পরীক্ষা করে সঠিক চিকিৎসাটি দিতে পারবেন। আর কোন প্রশ্ন থাকলে মায়াকে জানাবেন। পাশে আছে মায়া।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও