এই বিষয়ে আগেও আপনাদের পরামর্শ পেয়েছি। অতঃপর অথো'পেডিক ডাক্তার দেখিয়েছি আমার মেয়েকে(বয়স ২ বছর ৪ মাস, ওজনঃ ১৮ কেজী, হাটবার সময় পা ভিতরের দিকে বেঁকে যায়)। ডাক্তার ১)x ray (Leg with knee & ankle joint, forearm with wrist & elbow joint), ২)Vitamin D, ৩)S. Creatinine, ৪)S. Calcium, ৫)A.S.O. titre, ৬)RA test, ৭)CRP টেষ্ট দিয়েছিল। টেস্ট করার পর রিপোর্টের রেজাল্ট ১) Comment:Suggestive of sign rickets(? could be treated case naturally). Adv. Biochemical correlation & follow up please. ২)Vit D(25 OH)-16.8ng/ml ৩)S.Creatinine-0.24mg/dl ৪)S. Calcium-9.95mg/dl ৫)A.S.O. Titre-53.4 IU/ml ৬)RA test- 9.38 IU/ml ৭) CRP-3.3mg/L. এখন অধ্যাপক ডাঃ এম এ বাছেদ স্যারের অধীনে আছি। প্রশ্নঃ রিকেট রোগের স্হায়ী সমাধান আছে কি। সমাধান থাকলে কি ভাবে? কোন হাসপাতালে যেতে হবে কি? আর কোন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দেখানো লাগবে কি? # পরামর্শের জন্য বিনীত অনুরোধ করা হলো।

গ্রাহক, রিকেট হলো একটি রোগ যা ভিটামিন ডি এবং ক্যালসিয়ামের অভাবের কারণে হয়। এটি হাড়ের স্বাস্থ্যের উপর ভীষণ বড় প্রভাব ফেলে, পাশাপাশি শিশুদের এবং বয়ঃসন্ধিদের মধ্যে বৃদ্ধি এবং বিকাশে, এমন কি বয়সকালেও মারাত্মক প্রমাণিত হয়েছে কারণ এটি হাড়কে নরম, দুর্বল করে দেয় এবং হাড়ের বৃদ্ধি খুব বেদনাদায়ক হয় এবং এর ফলে অঙ্গবিকৃতিও হয়। এই অবস্থাকে শিশুদের মধ্যে হলে রিকেট এবং প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে হলে অষ্টিওমেলাসিয়া বলা হয়।এর প্রাথমিক লক্ষণ এবং উপসর্গের মধ্যে থাকে হাড়ে ব্যাথা, কঙ্কাল বিকৃতি, দাঁতে সমস্যা, হাতের কনুই থেকে কব্জি পর্যন্ত এবং হাঁটুতে, কস্টোকোন্ড্রাল জংশনে (যেখানে পাঁজর বুকের সাথে সংযুক্ত থাকে) দুর্বল বৃদ্ধি প্রকাশিত হয়, এই জায়গাগুলোতে দ্রুত হাড়ের বৃদ্ধি এবং বিকাশ এবং ভঙ্গুর হাড় দেখা যায়। ফন্টানেল্লে (শিশুদের মাথার উপরের নরম অংশ) বন্ধ হতে সময় নেয় এবং সদ্যজাতদের মধ্যে কপালের হাড়ে গোলাকার ফোলা অংশ দেখা যায়। একটু বড় শিশুদের মধ্যে কাইফোসিস বা স্কোলিওসিস (মেরুদন্ড সামনের দিকে বা পাশের দিকে বাঁকা থাকে) থাকতে পারে।কঙ্কাল সংক্রান্ত বিষয় ছাড়া অন্যান্য উপসর্গের মধ্যে রয়েছে ব্যাথা, জ্বালা, অঙ্গ সঞ্চানলে বিলম্ব এবং কম বৃদ্ধি। রিকেট রোগ অনেক সময় কঙ্কাল সংক্রান্ত ডিসপ্লেসিয়াসের সাথে ভুল হতে পারে, কারণ এদের ক্লিনিক্যাল বৈশিষ্ট্যগুলি একইরকম।রিকেট রোগের খুব সাধারণ কারণ হলো ভিটামিন ডি এবং ক্যালসিয়ামের অভাব। এর সবচেয়ে সাধারণ কারণ গুলো হচ্ছে ঃ১)পুষ্টির অভাব।২)ভিটামিন ডি এর শোষণে অক্ষমতা।৩) সূর্যরশ্মিতে ত্বকের অপর্যাপ্ত প্রকাশ।৪) গর্ভাবস্থা।৫) অকালজাত বা সময়ের আগে হওয়া।৬) স্থূলতা।৭) কিডনি এবং লিভারে রোগ।৮) নির্দিষ্ট কিছু অ্যান্টিকনভালস্যান্টস (খিঁচুনির জন্য) বা অ্যান্টিরেট্রোভাইরাল (এইচআইভির জন্য) ওষুধ৯) ক্যালসিয়াম এবং ফসফেট ঘাটতির কারণে খনিজকরণের ত্রুটিগুলিকে যথাক্রমে ক্যালসিপেনিক এবং ফসফোপেনিক রিকেট হিসেবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়। খনিজকরণের ত্রুটি, ভিটামিন ডি থেকে বিচ্ছিন্ন অথবা দ্বিতীয় পর্যায়ভুক্ত ঘাটতি, বৃদ্ধির প্লেটের নীচে হাড়ের কোষে অস্টিওড (অখনিজ উপাদান) সঞ্চয় করে। এই কারণে নির্দিষ্ট সময়ের পর হাড় দুর্বল হয়ে যায় এবং বেঁকে যায়।এই রোগ নির্নয়ের জন্য, ভিটামিন ডি এর ঘাটতি নির্ণয়ের ক্ষেত্রে ল্যাবরেটরি পরীক্ষায় ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ডি এর মাত্রা, ক্ষারীয় ফসফাটেজ, ফসফরাস এবং প্যারাথাইরয়েড হরমোনের মাত্রা জানার জন্য রক্ত পরীক্ষা করা হয় । যেখানে হাড়ের মধ্যের পরিবর্তন দেখা যায়, তার জন্য এক্স-রে পরীক্ষার পরামর্শ দেওয়া হয়।হাড়ের বায়োপসি প্রয়োজন হতে পারে এবং রিকেট বা অস্টিওম্যালাসিয়া নির্ণয়ের জন্য এটি হল সবচেয়ে সঠিক পদ্ধতি।অভাবের প্রকৃতি এবং তীব্রতা নির্ধারণ করে ভিটামিন ডি-এর যথাযথ ডোজ এবং যতক্ষণ না এক্স-রের ফলাফল স্বাভাবিক হয়, ততক্ষণ ক্যালসিয়াম সম্পূরক দেওয়া হয়।কয়েকটি সহজ ব্যবস্থা রিকেট রোগ প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পরে। এরজন্য আপনি অবশ্যই:- স্বাস্থ্যকর খাদ্য গ্রহণ করুন যাতে দুগ্ধজাত খাবার এবং ডিম অন্তর্ভুক্ত থাকে।- বাইরে সময় কাটান, বিশেষ করে সকালের রোদে।- ডাক্তারের সাথে পরামর্শের পর ভিটামিন ডি-এর সম্পূরক গ্রহণ করুন।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও