প্রিয় গ্রাহক,আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।আপনার এমন টা কতদিন ধরে হচ্ছে? আপনি কি কোন চিন্তায় আছেন? দীর্ঘদিন ধরে একাকীত্ব ও হতাশায় ভুগলে স্মৃতিশক্তি কমে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।তাই চিন্তামুক্ত থাকার চেষ্টা করা।এছাড়া নিয়মিত ঘুম না হলে মস্তিষ্ক প্রয়োজনীয় বিশ্রাম পায় না। দীর্ঘদিন ধরে যারা অনিদ্রায় ভুগছেন, তাদের মধ্যে স্মৃতিশক্তি কমে যাওয়ার প্রবণতা দেখা দিতে পারে।মানুষের মস্তিষ্কটাকে কম্পিউটার প্রসেসরের মতই ধরা হয়ে থাকে। এর একটি নির্দিষ্ট প্রসেসিং পাওয়ার রয়েছে আর রয়েছে বুদ্ধিমত্তাও। এই বুদ্ধিমত্তা আমরা কে কতখনি ব্যবহার করব তা নির্ভর করছে আমাদের ওপর। কোন কাজ শেষ করতে, সমস্যার সমাধান করতে, মনোযোগ দিতে, সৃজনশীল কাজে প্রয়োজন এই বুদ্ধিমত্তার। কিন্তু কিছু কিছু চিন্তার ভুল (নেগেটিভ চিন্তা), মানসিক দ্বন্দ্ব ধীরে ধীরে কমিয়ে দেয় বুদ্ধি বা আইকিউ। বয়স বাড়ার সাথে সাথে কমতে থাকে মানুষের কোনো কিছু মনে রাখার ক্ষমতাও। আপনার বয়স টা কি শেয়ার করা যায়? এছাড়া কোন কিছু চর্চা না করলে ভুলে যাওয়াটাই স্বাভাবিক।তাই ব্রেন কে সব সময় কাজে লাগাতে হবে না হলে এর কার্জক্ষমতা কমে যেতে পারে।এছাড়া মনোযোগ দিয়ে কোন কিছু না করলে ভুলে যাওয়াটাই স্বাভাবিক। তাই তখন মনে হতে পারে স্মৃতি শক্তি কমে গেছে। তাই মাইন্ডফুল ভাবে কাজ করতে হবে। mindful exercise করতে পারেন। এতে ধীরে ধীরে মনে রাখার ক্ষমতা বাড়বে। এছাড়া ব্রেন এর চর্চা করতে পারেন যেমন প্রতিদিন রাতে শুয়ে মনে করা সারাদিন কি কাজ করলাম।মানুষের মন ভিজুয়াল বা ইমেজ স্মরণে রাখতে পটু। তাই যে কোনো স্মৃতির সঙ্গে ইমেজ এসোসিয়েশন স্মৃতিশক্তি প্রখর করার জন্যে কার্যকরী ভূমিকা পালক করে।ব্রেন গেম যেমন পাজল, সুডোকু, ক্রসওয়ার্ডস এগুলো মানুষের স্মৃতিশক্তিকে আরো প্রখর করে তুলতে বিরাট ভূমিকা পালন করে। উদাহরণ দিয়ে বা ছন্দ করে মনে রাখার চেষ্টা করা যেতে পারে।কিছু কিছু তথ্য ডায়েরি তে  লিখে রাখতে পারেন। তাহলে প্রয়োজনে তা কাজে লাগে।কারন সব তথ্য মনে রাখাটাও কঠিন সাধ্য একটা ব্যাপার।এতে আসতে আসতে সরণ শক্তি বাড়বে বলে আশা করছি।গ্রাহক মানসিক দুশ্চিন্তা থাকলে তা আগে সমাধান এর চেষ্টা করতে হবে কারন দুশ্চিন্তার কারনে পড়া লিখায় মন বসে না। অনেক দিন না পড়লে বা অনেক পড়া জমে গেলে অনেক চাপ অনুভব হয় এবং তখন পড়তে ইচ্ছাও কম হয়।তাই ধীরে ধীরে একবার হলেও সব গুলো বিষয় রিডিং পড়ার চেষ্টা করতে পারেন।তাহলে কিছুটা হলেও কনফিডেন্স আসবে বলে আশা করছি। আর যে দিন এর পড়া সে দিন শেষ করার চেষ্টা করা। একটা রুটিন মেইনটেইন করে পড়া শুনা করার চেষ্টা করতে পারেন।   আর পড়ায় মন আনার জন্য যেটা করতে পারেন আপনার কিছু ভাল বন্ধু যারা পড়া লিখা নিয়ে ব্যস্ত থাকে তাদেরকে অনুসরণ করতে পারেন বা তাদের সাথে গ্রুপ study করতে পারেন এতে পড়ায় কিছু টা মন আসতে পারে। পড়লে কি হবে বা আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি এটা নিয়ে ভাবতে পারেন তাহলে বুঝতে পারবেন আপনার কি করা উচিত হবে। এছাড়া motivational speech শুনতে পারেন এতে কিছু টা পড়ার প্রতি আগ্রহ আসে।পড়ার পরিবেশ ও ভাল হওয়া উচিত তাহলে পড়ায় মন বসে।এক টানা না পড়ে পড়ার মাঝে মাঝে কিছু সময় gap নিয়ে পড়তে পারেন।এছাড়া যে বিষয় টা পড়তে আপনার ভাল লাগে সেটা আগে পড়ুন এতে পড়তে ও ইচ্ছা করবে। প্রথমে কঠিন দিয়ে শুরু করলে পড়তে তেমন মন চাইবে না। সারাদিন পরিশ্রম করলে এবং রাতে ঠিক মতন না ঘুমালে ক্লান্ত লাগতে পারে। তাই রাতে পরিমিত ঘুমানোর চেষ্টা করা।  আশা করি এই বিষয় গুলো আপনাকে পড়ার দিকে motivated করবে। আশা করি কিছুটা সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোন প্রশ্ন থাকলে মায়াকে জানাবেন। আপনার প্রয়োজনে রয়েছে পাশে সব সময় মায়া।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও