প্রিয় গ্রাহক, আপনার প্রশ্নটির জন্য অনেক ধন্যবাদ। গ্রাহক, টি ট্রি অয়েল সরাসরি ব্যবহার না করে সমপরিমাণ এক্সট্রা ভার্জিন নারকেল তেলের সাথে মিশিয়ে আক্রান্ত স্থানে ব্যবহার করবেন।প্রতিদিন ঘুমোতে যাওয়ার আগে প্রয়োগ করবেন এবং সকালে স্বাভাবিক ভাবেই ধুয়ে ফেলবেন।একটা টমেটো দু’ভাগ কর এর একটা অংশে চিনি লাগিয়ে নিতে হবে।এখন এই চিনিসহ টমেটো আক্রান্ত স্থানে  স্ক্রাব করতে হবে। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলতে হবে। এই স্ক্রাবারটি মিলিয়া দুর করতে অত্যন্ত কার্যকর। মিলিয়া দুর করা ছাড়াও টমেটো এই স্ক্রাবারটি ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রেখে ত্বককে উজ্বল করে তোলে।প্রয়োজনের তুলনায় ফেইস ওয়াশ দিয়ে মুখ অতিরিক্ত ধোয়া থেকে ত্বকে মিলিয়া হতে পারে। আবার,প্রতিদিন ঠিকমতো মুখের ত্বক পরিষ্কার না করলে মিলিয়া দেখা দেয়।তাই নিয়ম মেনে দিনে অন্তত দুই বার সঠিক ফেইস ওয়াশ দিয়ে মুখ ধোয়া জরুরি।এছাড়াও পানি কম খাওয়ার ফলেও ত্বক ডিহাইড্রেটেড হয়ে মিলিয়ার মতো সমস্যা দেখা দেয়।তাই ত্বকের পি এইচ ব্যালেন্স বজায় রাখার জন্য দৈনিক ৮ থেকে ১০ গ্লাস পানি পান করা উচিত। প্রতিদিন অন্তত সকালে এবং রাতে ১ বার করে ফেইস অয়াশ দিয়ে স্কিন ক্লিন করে টোনার অ্যাপ্লাই করে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করবেন। বাইরে গেলে সানস্ক্রিন ব্যবহার করতেই হবে। বাইরে থেকে এসে ডিপ ক্লিন করা তারপর সেই টোনার অ্যাপ্লাই করে ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার। মোট কথা, ক্লিনিং, টনিং, ময়েশ্চারাইজিং, এবং সানস্ক্রিন অ্যাপ্লাই ব্যস।আশা করি আপনাকে সাহায্য করতে পেরেছি। আর কোনও প্রশ্ন থাকলে, মায়াকে জানাবেন,রয়েছে পাশে সবসময়,মায়া।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও