গ্রাহক, আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। কুকুর-বিড়াল কামড় দিলে প্রথমে কিছু বিষয় দেখতে হয়। যেমন রক্ত বের হচ্ছে কিনা, শরীর এর কোন অংশে কামড় দিয়েছে, উল্লেখিত প্রাণি অসুস্থ কিনা ইত্যাদি। সাধারনত গৃহপালিত হলে বা জলাতঙ্ক রোগবাহী প্রানী না হলে, জলাতঙ্কের ভ্যাক্সিন দিতে হয়না। কামড় এর স্থান ভালমত সাবান পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হয়। এরপর দ্রুত চিকিৎসক এর পরামর্শ নিয়ে প্রয়োজনীয় ওষুধ, চিকিতসা নিতে হবে। জলাতঙ্কের ভ্যাক্সিন দেওয়ার প্রয়োজন হলে এটা পুর্বে দেওয়া না থাকলে মোট ৫ টা ডোজ দিতে হবে। আরও কিছু ওষুধ দরকার হতে পারে ক্ষতের ধরন এবং অবস্থা বিবেচনা করে, ভ্যাক্সিন দরকার কিনা, কোনটা দরকার তা ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিতে হবে। কাজেই এরকম পরিস্থিতে অবশ্যই সরাসরি ডাক্তার এর পরামর্শ নিতে হবে। কুকুর এবং বিড়াল ছাড়াও আর যেসকল প্রানির কামড়ে জলাতঙ্কের ভ্যাক্সিন দিতে হতে পারেঃ শিয়াল, বেজি, বানর, বাদুড়। আবার ইঁদুর, খরগোস এর কামড়ে জলাতঙ্কের ভ্যাক্সিন দেওয়ার প্রয়োজন নেই, তবে অন্য টিকা বা ওষুধ লাগবে কিনা জেনে নিবেন। গর্ভবতী কিংবা ছোট বাচ্চারাও এই ভ্যাক্সিন নিতে পারবে প্রয়োজন হলে, তবে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ও সরাসরি দেখিয়ে নিতে হবে। আশা করি আপনার প্রশ্নের উত্তর দিতে পেরেছি। আর কিছু জানার থাকলে আমাদের কাছে লিখে পাঠান। ধন্যবাদ।

আপনার কোনো প্রশ্ন আছে?

মায়া অ্যাপ থেকে পরিচয় গোপন রেখে নিঃসংকোচে শারীরিক, মানসিক এবং জীবনধারা বিষয়ক যেকোনো প্রশ্ন করুন, বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।


মায়া অ্যাপ ডাউনলোড করুন

প্রশ্ন করুন আপনিও